১১ বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে রাহুলের দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে চালকের আসনে ভারত

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সেঞ্চুরিয়ন টেস্টের প্রথম দিনে ৩ উইকেট হারিয়ে ২৭২ রান করেছে টিম ইন্ডিয়া। ওপেনার কে এল রাহুল ১২২ ও অজিঙ্কা রাহানে ৪০ রানে অপরাজিত আছেন। দু’জনের মধ্যে চতুর্থ উইকেটে ১৩০ বলে ৭৩ রানের জুটি গড়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে তিনটি উইকেটই নিয়েছেন লুঙ্গি এনগিদি।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে কে এল রাহুল এবং মায়াঙ্ক আগরওয়াল টিম ইন্ডিয়াকে দুর্দান্ত শুরুয়াত দেন। প্রথম উইকেটে ১১৭ রানের জুটি গড়েন তাঁরা। এই আফ্রিকান সফর ভারতের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। টিম যেভাবে সিরিজ শুরু করেছে, তাতে আপাতত মনে হচ্ছে টিম ইন্ডিয়া ফ্রন্ট ফুটে রয়েছে।

ভারতীয় ওপেনার রাহুল দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ২১৭ বলে তাঁর সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। টেস্টে এটি তার ৭ম সেঞ্চুরি এবং আফ্রিকান দলের বিপক্ষে তাঁর প্রথম সেঞ্চুরি। বিদেশের মাটিতে এটি রাহুলের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি।

এই বছরের ইংল্যান্ড সফরেও রাহুল লর্ডসে ১২৯ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছিলেন। রাহুল ইতিহাসে প্রথম ভারতীয় ওপেনার হিসেবে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট সেঞ্চুরি করে নজির গড়লেন।

দেশগুলিতে এটি রাহুলের চতুর্থ সেঞ্চুরি। ওয়াসিম জাফরের পর রাহুল দ্বিতীয় ভারতীয় ওপেনার হিসেবে এসএ-তে সেঞ্চুরি করলেন। ২০২১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এটি রাহুলের তৃতীয় সেঞ্চুরি।

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে মাত্র দুই ভারতীয় ওপেনার সেঞ্চুরি করেছেন। রাহুলের আগে এই কীর্তি অর্জন করেছিলেন ওয়াসিম জাফর। ১৪ বছর আগে ২০০৭ সালে তিনি ১১৬ রানের ইনিংস খেলেছিলেন।

জাফরের সেঞ্চুরি ছিল কেপ টাউনে। আফ্রিকার মাটিতে প্রথম ওপেনার হিসেবে সেঞ্চুরি করেন তিনি। ২০০৭ সালের পর কোনও ভারতীয় ওপেনার আফ্রিকায় এদিনের আগে পর্যন্ত সেঞ্চুরি করেননি।

এদিন রাহুল অনবদ্য ইনিংস উপহার দিলেও চেতেশ্বর পুজারা। তিনি প্রথম বলেই রানের খাতা না খুলে প্যাভিলিয়নের পথে পা বাড়ান। প্রায় দু’বছর টেস্ট ক্রিকেটে সেঞ্চুরি না পাওয়া অধিনায়ক বিরাট কোহলি এদিন সেট হয়েও ব্যক্তিগত ৩৫ রানের মাথায় আউট হন।

অফস্ট্যাম্পের বাইরের বল অযথা খোঁচা দিয়ে নিজের বিপদ ডেকে আনেন তিনি। তা-সত্ত্বেও আরও একটা রেকর্ড গড়েছে আজ ক্যাপ্টেন কোহলির টিম ইন্ডিয়া। মায়াঙ্ক আগরওয়াল এবং কে এল রাহুল প্রথম উইকেটে ২৪৪ বলে ১১৭ রান যোগ করেন।

দঃ আফ্রিকার মাটিতে ১১ বছর পর ভারতের ওপেনিং জুটি সেঞ্চুরি পার্টনারশিপ গড়ে। এর আগে ২০১০ সালে গৌতম গম্ভীর এবং বীরেন্দ্র সেহওয়াগ ভারতের হয়ে ওপেন করতে নেমে ১৩৭ রান করেছিলেন। ভারতীয় ইনিংসের গোড়াপত্তনকারী

এই দুই ব্যাটার শক্ত ভিত গড়ে দিয়েছিলেন বলেই ভারত প্রথম টেস্টের দিনের শেষে সুবিধাজনক জায়গায় রয়েছে। কালকের সকালের প্রথম ঘণ্টাটা যদি রাহুল-রাহানে যদি সামলে দেন, তাহলে নিশ্চিত বড় স্কোরের এগোবে ভারত।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.