সরকারের বিরোধে একি বললেন : রিজভী

সরকারের একটি সিন্ডিকেট স্বাস্থ্যখাতের টাকা লোপাট করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার সকালে কোভিড-১৯ হেল্প সেন্টার থেকে গাজীপুর মহানগর কর্তৃক চিকিৎসা ও সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন।

অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেন, সরকার মিথ্যার ওপর দাঁড়িয়ে জাতিকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করছেন। আজকে বলা হচ্ছে গণটিকা অভিযান চলছে। কিন্তু গণমাধ্যমে খবর আসছে দীর্ঘ লাইনেও মিলছে না করোনার টিকা। আসলে ক্ষমতার নেশায় আচ্ছন্ন হয়ে সরকার কোনো সময়ই ন্যায়-নীতির তোয়াক্কা করেনি। তারা শুধু লোপাট করেছে। যে কারণে আজকে ঢাকাসহ গ্রামেগঞ্জে মানুষ করোনার চিকিৎসা পাচ্ছে না। সেসব এলাকায় আইসিইউ বেড, অক্সিজেন ও অন্যান্য জরুরি চিকিৎসা সামগ্রীর প্রচণ্ড সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এসবের কারণ হলো সরকারের একটি সিন্ডিকেট স্বাস্থ্যখাতের টাকা লোপাট করেছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ব্যর্থ। আজকে করোনা মোকাবিলায় লকডাউনের কথা বলা হচ্ছে। অথচ রাস্তায় গেলে দেখবেন যানবাহন যেন স্বাভাবিকভাবেই চলছে। আসলে গণবিরোধী সরকার ক্ষমতায় থাকার কারণে এসব সমন্বয়হীনতা তৈরি হয়েছে।

সম্প্রতি তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের এক মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, আমরা বলেছিলাম ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন নেব না। কারণ বিশ্বের অনেক দেশ ও সংস্থা সেই ভ্যাকসিন নিয়ে সন্দেহ ও আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। সেসময় বলা হয়েছিল, অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলায় সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন কার্যকর কি-না তা দেখার জন্য বাংলাদেশে ট্রায়াল করা হবে। সেজন্যই মানুষের মনে আরো সন্দেহ বেড়ে গেছে। কেননা সেই ভ্যাকসিন ভালো না মন্দ সেটা কোনো স্বীকৃতি তখনো মেলেনি। ফলে আমি করোনার ঝুঁকি নিয়েও ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন নেই নি। কিন্তু তথ্যমন্ত্রী ও অন্যরা আমাদের বক্তব্য ভালোভাবে শোনেননি।

তিনি বলেন, তথ্যমন্ত্রী মিথ্যা তথ্যের ওপর দাঁড়িয়ে মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করছেন। অথচ আমি যেটা বলেছিলাম ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন নেব না এবং নেইনি। ফলে ওই টিকা না নিয়েই আমাকে চারমাস কোভিডে ভুগতে হয়েছে। এখন আমি মডার্নার ভ্যাকসিন নিয়েছি। কারণ সেটা যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি।

রিজভী বলেন, আজকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে দলের প্রত্যেকটি নেতাকর্মী করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে সাধ্যমতো সহায়তা করছে। আর এটাও আওয়ামী লীগের সহ্য হচ্ছে না। তারা আমাদের বিভিন্ন কর্মসূচিতে বাধা দিচ্ছে। তারা নানাভাবে, নানা রঙে, নানা কৌশলে আমাদের কর্মকাণ্ডকে ঢাকার ষড়যন্ত্র করছেন।

তিনি বলেন, আজকে সারাদেশ যেন বদ্ধভূমিতে পরিণত হয়েছে। রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেলে মনে হবে গোটা দেশ যেন গোরস্থানে পরিণত হয়েছে। অথচ অনেক দেশ যেমন ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, নেপালসহ আরো কয়েকটি দেশ জনগণকে বাঁচাতে কত দ্রুত মানবিক পদক্ষেপ নিয়েছে। অন্য দিকে বাংলাদেশের সরকার তা গ্রহণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে আজকে মানুষ মারা যাচ্ছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মো: সালাউদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অংশ নেন সদস্য সচিব মো: সোহরাব উদ্দিন, মো: শওকত হোসেন সরকার ও সদস্য রাশেদুল হক প্রমুখ।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.