শূন্য রান থকে বিধ্বংসী ক্রিকেটার হয়ে ওঠা ভারতীয় কিংবদন্তীরা

একবার জাতীয় দলে সুযোগ পেয়ে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে দলে টিকে থাকার চেষ্টা করেন ক্রিকেটাররা। আর এর জন্য পরিশ্রমের শেষ সীমা পর্যন্ত চেষ্টা করেন তারা। একজন ক্রিকেটারের জীবনে অভিষেক ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

যে কোন দেশের জাতীয় ক্রিকেট দলে প্রবেশ করা যে কোন ক্রিকেটারের জন্য অগ্নিপরীক্ষা সম। তাই একবার জাতীয় দলে সুযোগ পেয়ে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে দলে টিকে থাকার চেষ্টা করেন ক্রিকেটাররা। আর এর জন্য পরিশ্রমের শেষ সীমা পর্যন্ত চেষ্টা করেন তারা। একজন ক্রিকেটারের জীবনে অভিষেক ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ অভিষেক ম্যাচের উপর নির্ভর করে তার ভবিষ্যৎ ক্রিকেট জীবন। দ্বিতীয়বার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে মাঠে নামার সুযোগ হবে কিনা সেটি নির্ণয় করে অভিষেক ম্যাচ।

তাই প্রত্যেক ক্রিকেটার চায় নিজের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখতে। কিন্তু ভারতের এমন তিনজন বিধ্বংসী ক্রিকেটার রয়েছেন যারা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচে রানের খাতা না খুলে প্যাভিলিয়নে ফেরত গেছেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক-

৩. পৃথ্বী শ: এই তালিকায় সবচেয়ে কনিষ্ঠতম ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে নিজের নাম লিখিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটার পৃথ্বী শ। চলতি বছর রাহুল দ্রাবিড়ের অধীনে ভারতীয় দ্বিতীয় দল শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়েছিল। তখন ভারতীয় প্রথম দল ইংল্যান্ড সফরে ব্যস্ত ছিল। শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়ে অভিষেক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ প্রথম বলেই আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন পৃথ্বী শ। তার পরের দুই ম্যাচে মাঠে নামার সুযোগ হয়নি তার। উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে ভারতীয়দের মধ্যে সবচেয়ে কনিষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে শতরানের মালিক তিনি। অথচ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচে চরম ব্যর্থ তিনি।

২. কে এল রাহুল: বর্তমানে পৃথিবীর অন্যতম সেরা ক্রিকেটার কে এল রাহুল নিজের অভিষেক ম্যাচটি হয়তো কখনোই ভুলবেন না। ২০১৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। অপ্রত্যাশিত তালিকায় বর্তমান ভারতীয় ওপেনার কে এল রাহুলও রয়েছেন। টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক ম্যাচে রানের খাতা না খুলে তাকে প্যাভিলিয়নে ফিরে যেতে হয়। তবে তিনি অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচে একমাত্র ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে সেঞ্চুরি হাঁকানোর কৃতিত্ব অর্জন করেছেন। কে এল রাহুল এখনও পর্যন্ত ৫৪টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ৪০.১৪ গড়ে ১২৩৬ রান করেছেন। যার মধ্যে রয়েছে দুটি সেঞ্চুরি। তার সর্বোচ্চ স্কোর ১১০ রান।

১. মহেন্দ্র সিং ধোনি: নামটা শুনলে আশ্চর্য হলেও এটাই সত্যি যে, মহেন্দ্র সিং ধোনি ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচে শূন্য রানে প্যাভিলিয়নে ফিরেছিলেন। ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক ২০০৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে জীবনের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন। চতুর্থ স্থানে ব্যাটিং করতে নেমে রানের খাতা না খুলে মাঠের বাইরে যেতে হয়েছিল তাকে। মহেন্দ্র সিং ধোনি ৯৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ৩৭.৬০ গড়ে ১৬১৭ রান করেছেন। তার সর্বোচ্চ স্কোর ৫৬ রান।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.