ব্রেকিং নিউজ: ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে ছাড়াই ‘ওয়ানডে সুপার লিগ’ খেলার ঘোষণা দিল আইসিসি

পার্লে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আজ খেলছে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু এই ওয়ানডেই একটা অন্য রকম ‘রেকর্ড’ গড়েছে। বছর দুয়েক হলো ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব হিসেবে ‘ওয়ানডে সুপার লিগ’ চালু করেছে আইসিসি, কিন্তু ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচটি সেই সুপার লিগের অংশ নয়।

কেন নয়, সেটির ব্যাখ্যাও দিয়েছে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। ভারতের ক্রিকেট পরিসংখ্যানবিদ কৌস্তব গুড়িপতি টুইটারে জানাচ্ছেন, ২০২০ সালের জুলাইয়ে আইসিসির সুপার লিগ চালু হওয়ার পর থেকে এই দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত সিরিজই প্রথম সিরিজ,

যেখানে সুপার লিগে খেলা দুটি দল খেলছে, কিন্তু সিরিজটি সুপার লিগের অংশ নয়। আইসিসি জানাচ্ছে, ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগে আয়োজিত প্রতিটি সিরিজই সুপার লিগের অংশ নয়।

শুধু পূর্বনির্ধারিত সিরিজগুলোকেই সুপার লিগের অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হবে। ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপ উপলক্ষে আয়োজিত সুপার লিগে ১৩টি দল খেলছে। প্রতিটি দলই যে লিগের বাকি ১২ দলের সঙ্গে সিরিজ খেলবে, ব্যাপারটা এমন নয়।

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, যেকোনো দল সব মিলিয়ে ১৩ দলের মধ্যে ৮টির সঙ্গে সিরিজ খেলতে পারবে। সিরিজে ম্যাচের সংখ্যাও নির্দিষ্ট—৩টি। ‘কখনো কখনো এমন হতে পারে যে

(দুটি দল) সিরিজে চারটি বা পাঁচটি ম্যাচ খেলল, কিন্তু এর মধ্যে থেকে শুধু পূর্বনির্ধারিত তিনটি ম্যাচকেই সুপার লিগের পয়েন্ট তালিকায় হিসাব করা হবে’—আইসিসির ব্যাখ্যা।

কোন দল কখন সুপার লিগের অংশ হিসেবে অন্য কোনো দলের সঙ্গে সিরিজ খেলবে, সেটি আগে থেকেই নির্ধারণ করে দেওয়া আছে। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার এই সিরিজ সেই পরিকল্পনার অংশ ছিল না বলেই জানিয়েছে আইসিসি। বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি যে আট বছরের চক্র হিসাব করে ভবিষ্যৎ সফর তালিকা (এফটিপি) তৈরি করে,

সেখানেও অনেক দ্বিপক্ষীয় সিরিজ আছে, যেগুলো সুপার লিগের অংশ নয়। সুপার লিগের গঠনটা কী রকম, সেটির বিশদ ব্যাখ্যাও দিয়েছে আইসিসি। ভারতের ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজ আইসিসির বিবৃতিকে উদ্ধৃত করে লিখেছে,

‘প্রতিটি দল (লিগের ১৩ দলের মধ্যে) ৮টি দলের সঙ্গে তিনটি করে ওয়ানডে খেলবে। এর মধ্যে চারটি সিরিজ হবে ওই দলের নিজেদের মাটিতে, চারটি প্রতিপক্ষের মাটিতে। তার মানে একটা দল (সুপার লিগের অংশ হিসেবে) ২৪টি ম্যাচ খেলবে।’

সুপার লিগের পয়েন্ট তালিকায় প্রতিটি জয়ের জন্য ১০ পয়েন্ট যোগ হয়। হেরে যাওয়া দল কোনো পয়েন্ট পাবে না। ম্যাচ টাই হলে, পরিত্যক্ত হলে কিংবা কোনো ফল না দেখলে সে ক্ষেত্রে ওই ম্যাচের জন্য দুই দল ৫ পয়েন্ট ভাগ করে নেবে।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ওভার শেষ করতে না পারলে সেটির জন্য পয়েন্ট কাটারও বিধান (পেনাল্টি ওভার) আছে। এ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা (৩ পয়েন্ট), ভারত (১) ও দক্ষিণ আফ্রিকা (১) এই নিয়মের অধীনে পয়েন্ট হারিয়েছে।

ভারত সুপার লিগের অংশ হিসেবে এরই মধ্যে ৯টি ম্যাচ খেলে ফেলেছে। ২০২০ সালের নভেম্বর খেলেছে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে, ২০২১ সালের জুলাইয়ে খেলেছে শ্রীলঙ্কার মাটিতে।

এর বাইরে নিজেদের মাটিতে তিনটি ম্যাচ খেলেছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। এখানে মজার ব্যাপারটা হচ্ছে, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার এই সিরিজ সুপার লিগের অংশ নয়, কিন্তু সুপার লিগের অংশ হতে পারত যে ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ, সেটি গত বছরের মার্চে করোনার কারণে হতেই পারেনি।

সেই সিরিজটি আগামী বছর হবে। সেই দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত সিরিজের বাইরে সুপার লিগে ভারতের বাকি আছে আর তিনটি সিরিজ—আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের মাটিতে একটি সিরিজ, আর জিম্বাবুয়ে ও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে দুই সিরিজ।

৯ ম্যাচে ৫ জয় ও ৪ হারে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে আছে পয়েন্ট তালিকার ৭ নম্বরে। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ১২ ম্যাচে ৮০ পয়েন্ট নিয়ে আছে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে। অবশ্য এই পয়েন্ট তালিকার অবস্থানে ভারতের কিছু আসে-যায় না।

২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপের স্বাগতিক হিসেবে তারা তো বাছাইপর্বের অংশই নয়। স্বাগতিক হিসেবেই বিশ্বকাপে খেলবে ভারত। ভারতের বাইরে পয়েন্ট তালিকার ১২ দলের মধ্যে এগিয়ে থাকা সাত দল সরাসরি সুযোগ পাবে বিশ্বকাপে।

‘নিচে থাকা ৫ দল একটি বাছাইপর্ব খেলবে, যেখানে টুর্নামেন্টের নিচের স্তরের সেরা দলগুলোও থাকবে’—আইসিসির ব্যাখ্যা। তা সুপার লিগের অংশ না হওয়া এই সিরিজের প্রথম ম্যাচেই আজ দক্ষিণ আফ্রিকা টস জিতে আগে ব্যাট করেছে।

অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা (১১০) ও রেসি ফন ডার ডুসেনের (অপরাজিত ১২৯) দুই শতকে ৫০ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ২৯৬ রান তুলেছে তারা। জবাব দিতে নেমে এই প্রতিবেদন লেখার সময়ে ভারতের রান ১৮.২ ওভারে ১ উইকেটে ১০০।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.