বাভুমা ও দাসেনের জোড়া সেঞ্চুরিতে ভারতের সামনে পাহাড় সমান রানের টার্গেট দিল দক্ষিণ আফ্রিকা

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথমবার টেস্ট সিরিজ জিতে ইতিহাস গড়ার হাতছানি ছিল টিম ইন্ডিয়ার সামনে। যদিও শেষমেশ ১-২ ব্যবধানে টেস্ট সিরিজে হারতে হয় ভারতকে। এবার লোকেশ রাহুলের নেতৃত্বে ভারতীয় দলের যাত্রা শুরু প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে। বোল্যান্ড পার্কে জিতে কারা সিরিজে লিড নেয়, সেটাই হবে দেখার।

শার্দুল ঠাকুরের শেষ ওভারে ১৭ রান ওঠে। দক্ষিণ আফ্রিকা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ২৯৬ রান তুলেছে। সুতরাং, জয়ের জন্য ভারতের দরকার ২৯৭ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৯টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৯৬ বলে ১২৯ রান করে অপরাজিত থাকেন রাসি ভ্যান ডার দাসেন।

২ বলে ২ রান করে অপরাজিত থাকেন ডেভিড মিলার। এছাড়া তেম্বা বাভুমা ১১০ রান করেন। ডি’কক করেন ২৭ রান। ভারতের হয়ে ৪৮ রানে ২ উইকেট নেন বুমরাহ। ৫৩ রানে ১ উইকেট নেন অশ্বিন। ১০ ওভারে ৭২ রান খরচ করেও উইকেট পাননি শার্দুল। বেঙ্কটেশ আইয়ারকে বলই করায়নি ভারত।

৪৮.১ ওভারে বুমরাহর বলে লোকেশ রাহুলের হাতে ধরা পড়েন তেম্বা বাভুমা। ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৪৩ বলে ১১০ রান করে ক্রিজ ছাড়েন তেম্বা। দক্ষিণ আফ্রিকা ২৭২ রানে ৪ উইকেট হারায়। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার। ম্যাচে বুমরাহর এটি দ্বিতীয় শিকার। ৪৯ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ২৭৯/৪।

৮টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে ৮৩ বলে ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করেন ভ্যান ডার দাসেন। ৪৮ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকা ৩ উইকেটের বিনিময়ে ২৭২ রান তুলেছে। বাভুমা ১১০ ও দাসেন ১০৯ রানে অপরাজিত রয়েছেন।

৭টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৩৩ বলে ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করেন তেম্বা বাভুমা। শতরানের পথে অগ্রসর হচ্ছেন রাস ভ্যান ডার দাসেনও। ৪৫ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২৪৫ রান। বাভুমা ১০০ ও দাসেন ৯৩ রানে ব্যাট করছেন।

৩৯তম ওভারে ৩ উইকেটের বিনিময়ে দলগত ২০০ রানের গণ্ডি টপকে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ৪০ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ২১০/৩। ব্যক্তিগত শতরানের সামনে দাঁড়িয়ে তেম্বা বাভুমা। তিনি ১১৮ বলে ৮৯ রান করেছেন। ৬২ বলে ৭০ রান করে অপরাজিত রয়েছেন রাসি ভ্যান ডার দাসে

৪টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৪৯ বলে ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরির গণ্ডি টপকে যান রাসি ভ্যান ডার দাসেন। ৩৫ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ৩ উইকেটে ১৮১ রান। তেম্বা বাভুমা ১০১ বলে ৭৮ রান করেছেন। ৪৯ বলে ৫৪ রান করেছেন দাসেন।

৩১ ওভারে দলগত ১৫০ রানের গণ্ডি টপকে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। তাদের স্কোর ৩ উইকেটে ১৫১ রান। বাভুমা ৬৩ রানে ব্যাট করছেন। ৪১ রানে অপরাজিত রয়েছেন ভ্যান ডার দাসেন।

৪টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৭৬ বলে ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তেম্বা বাভুমা। ২৮ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ১৩৩/৩। বাভুমা ৫১ রানে অপরাজিত রয়েছেন। ৩৫ রানে ব্যাট করছেন রাসি ভ্যান ডার দাসেন।

২৩ ওভারে দলগত ১০০ রান পূর্ণ করে দক্ষিণ আফ্রিকা। তাদের স্কোর ১০০/৩। তেম্বা বাভুমা ৫৮ বলে ৩৩ রান করেছেন। তিনি ২টি বাউন্ডারি মেরেছেন। ৩টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৯ বলে ২১ রান করেছেন রাসি ভ্যান ডার দাসেন।

১৭.৪ ওভারে বেঙ্কটেশ আইয়ারের দুরন্ত থ্রোয়ে রান-আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন এডেন মার্করাম। ১১ বলে ৪ রান করে ক্রিজ ছাড়েন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকা ৬৮ রানে ৩ উইকেট হারায়। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান রাসি ভ্যান ডার দাসেন। ১৮ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ৭০/৩।

১৫.১ ওভারে অশ্বিনের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন কুইন্টন ডি’কক। ২টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৪১ বলে ২৭ রান করে ক্রিজ ছাড়েন প্রোটিয়া তারকা। দক্ষিণ আফ্রিকা দলগত ৫৮ রানে ২ উইকেট হারায়। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান ক্যাপ্টেন তেম্বা বাভুমা। ১৬ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ৬৫/২।

১২ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ১ উইকেটে ৫২। ডি’কক ২৩ রানে ব্যাট করছেন। ১৫ রানে অপরাজিত রয়েছেন তেম্বা বাভুমা। ১২তম ওভারে অশ্বিনের তৃতীয় বলে কুইন্টনের ক্যাচ ছাড়েন শ্রেয়স। যদিও সহজ সুযোগ ছিল না এটি।

দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ ওভার শেষে ১ উইকেটের বিনিময়ে ৩৯ রান তুলেছে। ১টি বাউন্ডারির সাহায্যে ২৮ বলে ১৪ রান করেছেন কুইন্টন ডি’কক। ২৩ বলে ১২ রান করেছেন এডেন মার্করাম। তিনিও ১টি বাউন্ডারি মেরেছেন।

৪.২ ওভারে জসপ্রীত বুমরাহর বলে ঋষভ পন্তের দস্তানায় ধরা পড়েন জানেমন মালান। ১টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১০ বলে ৬ রান করেন প্রোটিয়া ওপেনার। দক্ষিণ আফ্রিকা ১৯ রানে ১ উইকেট হারায়। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান এডেন মার্করাম। ৫ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ২৩/১।

৩ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকা কোনও উইকেট না হারিয়ে ১৪ রান তুলেছে। ডি’কক ৭ ও মালান ১ রানে অপরাজিত রয়েছেন। বুমরাহ ২ ওভারে ৭ রান খরচ করেছেন। ভুবনেশ্বর ১ ওভারে ৩ রান দিয়েছেন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.