টেলিটক `জীবন সংকটে’ আছে বলে মন্তব্য : পরিকল্পনামন্ত্রী

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মোবাইল নেটওয়ার্ক টেলিটক `জীবন সংকটে’ আছে বলে মন্তব্য করেছেন । তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় এই প্রতিষ্ঠানকে `লাইফ সাপোর্ট’ দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ সারা দেশে টেলিটকের দুর্বল নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করতে সোয়া ২ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে মঙ্গলবার একনেক সভায় `গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং ৫-জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্কের আধুনিকায়ন’ নামের এ প্রকল্প অনুমোদন পায়।

সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

একনেক সভা শেষে প্রকল্পটির বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, ‘টেলিটক আমাদের নিজস্ব মোবাইল ফোন কোম্পানি। টেলিটকের শক্তি বৃদ্ধির জন্য আমরা ইনজেকশন দিচ্ছি। লাইফ সাপোর্ট দিচ্ছি। আমরা বিশাল বিনিয়োগ করব, যাতে করে এটা শক্ত হয়ে দাঁড়াতে পারে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘গ্রামাঞ্চলে এখন টু-জি থ্রি-জি আছে, তা কীভাবে ফোর-জি করা যায় তা ভাবা হচ্ছে। আমরা শিগগিরই ফাইভ-জিতে যাওয়ার আশা করছি। এ জন্য আমাদের অবকাঠামোকে রেডি রাখতে হবে। আমরা টেলিটকের অবকাঠামো স্ট্রেনদেন করছি।’

লোকসানে থাকার পরও টেলিটকে কেন নতুন নতুন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে, এমন প্রশ্ন করেন সাংবাদিকরা। জবাবে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, ‘প্রায়ই প্রশ্ন ওঠে, টেলিটকে লোকসান হচ্ছে তারপরও টাকা দেয়া হচ্ছে কেন? কল্যাণমুখী সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার স্টেটের দিকে লক্ষ্য রেখে আমাদের নীতি প্রণীত হয়।

‘ব্যক্তিখাতকে আমরা সহায়তা করব, সুযোগও দেব কিন্তু সরকার একদম সবকিছু ছেড়ে দেবে না। সরকারও যেন প্রয়োজনে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, দর-কষাকষি করতে পারে, এ জন্য সরকারকে তৎপর থাকতে হবে। যেমন বিআরটিসি, এটা তো লস কিন্তু মানুষের কথা চিন্তা করে বিকল্প ব্যবস্থা রাখা হয়। সব সময় লস মুখ্য থাকে না। লসটা করতে হয় সোশ্যাল ওয়েলফেয়ারের কথা চিন্তা করে।’

টেলিটকের নতুন প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘টেলিটকে এবার যে প্রজেক্টটা আসছে, এটা প্রথমে অনেক বেশি টাকা নিয়ে আসছিল। পরে এটা রিভাইজড হয়ে যখন এলো অনেক যুক্তিগতভাবে আসছে। থার্ড পার্টি দিয়ে এটাকে মূল্যায়ন করা হয়েছে।

‘এমন অনেক এলাকা বাংলাদেশে আছে, যেখানে বেসরকারি কোম্পানি যায় না। যেমন হিলট্র্যাক আছে, চরাঞ্চল আছে, যেখানে টেলিটকই যায়। এটা প্রধানমন্ত্রী অবহিত আছেন। টেলিটকে লোকসানের কারণ হলো, টেলিটকের চেয়ে বাকি সব কয়টার কথা বলায় রেটটা কিন্তু ডাবল।’

এ সময় পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মো. মামুন-আল-রশীদ বলেন, ‘কারো মনে হতে পারে, এ প্রকল্প শেষে আমরা ফাইভ-জি পেয়ে যাব, আসলে তা কিন্তু নয়। এর মাধ্যমে আমাদের বিদ্যমান টু-জি, থ্রি-জি, ফোর-জি উন্নয়নে কিছু কাজ করা হবে। সামনে যেহেতু ফাইভ-জিতে যাওয়ার টার্গেট আছে, ফাইভ-জির প্রস্তুতি হিসেবে আমরা কিছু ইকুইপমেন্ট বসাব।’

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.