এই ভারতীয় কিপারের উইকেটকিপিং দক্ষতা সবচেয়ে বেশি ভরসা জুগিয়েছে

টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের হয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট নিয়েছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলার সময় তিনি হরভজন সিংয়ের ৪১৭ উইকেটের সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেছেন। সম্প্রতি তিনি জানালেন কোন কিপারের উইকেটকিপিং দক্ষতা তাঁকে সবচেয়ে ভরসা জুগিয়েছে।

যখন অশ্বিনের টেস্ট অভিষেক হয়েছিল তখন মহেন্দ্র সিং ধোনি ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক এবং উইকেটকিপার ছিলেন। ধোনির টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার পর, ঋদ্ধিমান সাহাকে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছিল। তবে সাম্প্রতিক সময়ে ভারতীয় নির্বাচকদের প্রথম পছন্দ ঋষভ পন্ত। অশ্বিন এই তিনজনের সাথেই যথেষ্ট সংখ্যক ম্যাচ খেলেছেন। এছাড়াও, তিনি তাঁর রাজ্য দলের হয়ে অভিষেক হওয়ার পর থেকেই তামিলনাড়ুর হয়ে দীনেশ কার্তিকের সাথে খেলছেন।

সুতরাং, ধোনি, কার্তিক এবং সাহার মধ্যে স্পিনের বিরুদ্ধে সেরা কিপার বেছে নেওয়ার জন্য অশ্বিনই সঠিক ব্যক্তি হতে পারেন। একজন ভক্ত তাঁকে তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে একটি আলাপচারিতার সময় সেই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেছিলেন এবং তখন অশ্বিন বলেন ধোনিকে এমন একজন যিনি স্পিনের বিরুদ্ধে “অসাধারণ” ছিলেন। “ধোনি, সাহা এবং ডিকে – আমার উত্তর হবে এই ক্রমে। স্টাম্পের পিছনে তাদের আলাদা করা খুব কঠিন,” উত্তর দেন অশ্বিন।

অশ্বিন উল্লেখ করেছেন যে তিনি তামিল নাড়ুর হয়ে দীনেশ কার্তিকের সাথে প্রচুর ক্রিকেট খেলেছেন। তিনি আরও উল্লেখ করেছেন যে ধোনি কিছু কঠিন ডিসমিসালকে সহজ করে তুলেছেন। “আমি তামিলনাড়ুতে দীনেশের সাথে অনেক ক্রিকেট খেলেছি। কিন্তু আমি যদি একজনকেই বেছে নিই … আমি মনে করি কিছু সত্যিই কঠিন ডিসমিসাল সহজ হয়ে গেছে স্টাম্পের পেছনে এমএস ধোনি থাকার জন্য,” তিনি বলেছেন।

অশ্বিন বিশেষভাবে উল্লেখ করেছেন যে কীভাবে ধোনি অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফরের প্রথম টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার এড কাওয়ানকে ২০১৩ সালে আউট করেছিলেন৷ অশ্বিন খেলার ১৩তম ওভার বোলিং করেছিলেন এবং ২৯ রানে কাওয়ানকে আউট করেছিলেন৷ “প্রথম দিনে চেন্নাইয়ে এড কাওয়ানের এই একটি আউট হয়েছে যেখানে সে স্টাম্প আউট হয়। বল টার্ন না করলেও বাউন্স হয়ে যায় এবং এমএস ধোনি বল সংগ্রহ করেন।

আমি তাকে খুব কমই কিছু মিস করতে দেখেছি, সেটা স্টাম্পিং হোক বা রান আউট বা ক্যাচ। স্পিনের বিপক্ষে তিনি সবচেয়ে ব্যতিক্রমী কিপারদের একজন। সাহাও পিছিয়ে নেই,” ধোনির কাওয়ানকে আউট করার কথা স্মরণ করার সময় অশ্বিন বলেছিলেন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.