অবশেষে গাঙ্গুলি-ধোনির পার্থক্য বুঝিয়ে দিলেন হরভজন সিং

সদ্যই সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন ভারতের সেরা স্পিনারদের একজন হরভজন সিং। ক্রিকেট ক্যারিয়ারে তার চোখে সেরা অধিনায়ক কে, এমন প্রশ্ন ছুঁড়ে দেয়া হয়েছিলো হরভজনকে। ক্যারিয়ারে যাদের অধীনে খেলেছেন, তাদের মধ্যে দুই সেরা সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনিকে বেছে নিলেন এবং তাদের মধ্যে কে সেরা, পার্থক্য দিয়ে সেটিও বুঝিয়ে দিয়েছেন হরভজন।

ভারতের সংবাদ মাধ্যমকে হরভজন বলেন, এটি আমার জন্য একটি সহজ উত্তর। ক্যারিয়ারে আমি যখন ‘কিছুই’ ছিলাম না, গাঙ্গুলি সেই সময়ে আমার ট্যালেন্টকে চিনেছিলেন, সুযোগ দিয়েছিলেন এবং আমার উপর বিশ্বাস রেখেছিলেন। কিন্তু ধোনি যখন অধিনায়ক হন, আমি তখন ‘কিছু’ ছিলাম। তাই এটা থেকেই আপনাকে তাদের পার্থক্যটা বুঝতে হবে।

১৯৯৮ সালে মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের অধীনে অভিষেক হয়েছিলো হরভজনের। পরবর্তীতে গাঙ্গুলির অধীনেই বেশি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ২০০১-২০০৫ মেয়াদে গাঙ্গুলির নেতৃত্বে ১১৮টি টেস্ট ও ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন এই অফস্পিনার। সব মিলিয়ে ২৭৩টি উইকেট নিয়েছেন হরভজন।

আর ধোনির অধীনে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১৩৩ ম্যাচে ২২৯ উইকেট নেন হরভজন। ক্যাপ্টেন কুলের অধীনে ২০০৭ টি-২০ ও ২০১১ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয় করেন তিনি।

গাঙ্গুলির প্রশংসা করে হরভজন বলেন, আপনার জীবনে এবং পেশায় এমন একজনকে প্রয়োজন, যে আপনাকে সঠিক সময়ে গাইড করবে এবং গাঙ্গুলি আমার কাছে সেই মানুষটিই ছিলেন। গাঙ্গুলি লড়াই করে আমাকে দলে না পেলে হয়তো আজ আপনি আমার এই সাক্ষাৎকারটি নিতেন না। গাঙ্গুলি সেই নেতা যিনি আমাকে তৈরি করেছেন।

হরভজন আরো বলেন, সব ক্রিকেটারই সমর্থন চায়। সঠিক সময়ে সমর্থনটা পেলে ৫০০ থেকে ৫৫০ উইকেট নেয়ার পর অনেক আগেই আমি অবসর নিয়ে নিতাম। আমি তো মাত্র ৩১ বছর বয়সে ৪০০ উইকেট শিকার করেছি। আর তিন-চার বছর খেললেই আমি ৫০০ উইকেটের মাইলফলকে পৌঁছে যেতাম, তবে দুর্ভাগ্যবশত তা হয়নি।

এই বিষয়ে হরভজন আরো বলেন, এর পিছনে অনেক কারণ ছিল এবং সেই বিষয়ে কথা বলতে গেলে অনেক কিছু হারাতে হবে। যদি ৪০০ উইকেট নেয়ার পর কারো সমর্থনের প্রয়োজন হয়, তাহলে আমি জানি না আমরা নিজেদের ক্রিকেটারদের কি নজরে দেখি।

এরপর তিনি বলেন, সমর্থন করা বা না করাটা নির্দিষ্ট কয়েকজনের ওপর নির্ভরশীল। ২০০১-০২ সালে গাঙ্গুলির সমর্থনের পর ২০১২ সালে আমার সমর্থনের দরকার ছিল। সেটা পেলে আমার ক্যারিয়ার আরো সমৃদ্ধ হতে পারতো।

১৯৯৮ সালের মার্চে টেস্ট অভিষেক হয় হরভজনের। একই বছরের এপ্রিলে ওয়ানডে ও ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে টি-২০ অভিষেক হয় তার। দেশের হয়ে ২০১৬ সাল পর্যন্ত সর্বশেষ আন্তজার্তিক ম্যাচ খেলেন হরভজন।

১৮ বছরের ক্যারিয়ারে ভারতের হয়ে ১০৩ টেস্টে ৪১৭ উইকেট, ২৩৬ ওয়ানডেতে ২৬৯ উইকেট এবং ২৮টি টি-২০তে ২৫ উইকেট নিয়েছেন হরভজন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.